শনিবার, জুলাই ২

নির্যাতনের শিকার হয়ে মারা গেলেন ঠাকুরগাঁওয়ের গৃহবধু পারভিন

নিউজ ডেস্কঃ ঠাকুরগাঁওয়ে স্বামীর নির্যাতনে ছয় মাসের অন্তঃসত্বা নারী পারভিন আক্তারকে লোহার রড দিয়ে দু-হাত-পা ভেঙ্গে দেয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এমন অমানবিক ঘটনায় স্বজন ও এলাকাবাসি দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
বাবার বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে স্বামীর কথার একদিন পর শশুড় বাড়িতে ফিরে আসায় কাল হয় ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার মালঞ্চা গ্রামের সফিকুল ইসলামের মেয়ে পারভিন আক্তারের। কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নের পল্লীবিদ্যুত এলাকার দারাজ আলীর ছেলে স্বামী নুর ইসলাম ঘরের চিটকিনি লাগিয়ে শারিরিক নির্যাতনের পর রড় দিয়ে পিটিয়ে দু-হাত-পা ভেঙ্গে দেয় গৃহবধু পারভিনের। পরে স্থানীয়রা ঘরের দরজা ভেঙ্গে রক্তাত্ত অবস্থায় ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্তানান্তর করেন। চিকিৎিসা শেষে দুদিন আগে বাড়ি ফিরে আসলেও পরবর্তিতে অবস্থার অবনতি হলে স্বজনরা গতকাল দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেলে ভর্তি করলে চিকিৎসাধিন অবস্থায় ১৩দিন পর মারা যায় সে। স্বামীর এমন অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে গৃহবধু ও ছয়মাসের অন্তঃসত্বা শিশুকেও হত্যা করায় কোন ভাবেই মেনে নিতে পারছেন না স্বজন ও এলালাকাবাসি। নির্যাতনকারি নুর ইসলামের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তারা।
সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান হান্নু জানান, স্বামীর নির্যাতনের স্বীকার হয়ে গৃহবধু পারভিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেলে মারা গেছে। ছাড়পত্র না পাওয়ায় লাশ এখনো নিয়ে আসা হয়নি। লাশ দাফন কাফনে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগীতা করা হচ্ছে পরিবারের সম্মতিতে নিহতের বাবার বাসা অথবা শশুর বাড়ি এলাকায় আজই লাশ দাফন কাফন সম্পুর্ন করা হবে।
সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম জানান, এমন ঘটনা দুঃখজনক। এ বিষয়ে আইনের ধারা অনুযায়ী দ্রুত সময়ের মধ্যে পুলিশ রিপোর্ট দাখিল করা হবে।
গত ১৭ সেপ্টেম্বর নির্যাতনের শিকার হয় পারভিন। পরে ১৯ সেপ্টেম্বর বাবা সফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে সদর থানায় মামলা দায়ের করলে পরবর্তিতে নির্যাতনকারি নুর ইসলামকে গ্রেফতার করে আদালতে সোর্পদ করে পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.