মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৩

বিজিবির সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গা নিহত

নিউজ ডেস্ক: কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় বাংলাদেশ বর্ডার গার্ডের (বিজিবি) সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে দুই রোহিঙ্গা মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় বিজিবির তিন সদস্য আহত হয়েছেন।
সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ভোরে উপজেলার হ্নীলা ইউপির দমদমিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন-মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার মংডু থানার সিকদার পাড়ার মৃত হারুনুর রশিদের ছেলে মো. জামাল (২৭) ও একই এলাকার মো. জাফর আলমের ছেলে মো. ইউনুছ (২১)।
টেকনাফ-২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান বলেন, দক্ষিণ দমদমিয়া এলাকায় ইয়াবার একটি বড় চালান মজুদ রয়েছে-এমন তথ্যের ভিত্তিতে দমদমিয়া বিওপির একটি বিশেষ টহলদল ওই এলাকায় অভিযানে যায়। ইয়াবা ব্যবসায়ীদের অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর বিজিবি টহলদল তাদের চারদিকে ঘেরাও করে রাখে এবং আত্মসমর্পণের আহ্বান জানায়। কিন্তু দুষ্কৃতকারীরা অসম্মতি জানিয়ে টহলদলকে লক্ষ্য করে অতর্কিতভাবে গুলি ছোড়ে। এতে বিজিবির তিন সদস্য আহত হন। আত্মরক্ষার্থে বিজিবিও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় উভয়পক্ষের মধ্যে ১০ মিনিট গোলাগুলি হয়। গোলাগুলি থামার পর টহলদল ঘটনাস্থল তল্লাশি করে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দুই রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। পরে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।
তিনি আরো জানান, ঘটনাস্থল থেকে ৫০ হাজার ইয়াবা, দু’টি দেশীয় বন্দুক, তিন রাউন্ড তাজা কার্তুজ ও তিনটি ধারালো কিরিচ উদ্ধার করা হয়েছে। আহত বিজিবির তিন সদস্যকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।
টেকনাফ কমপ্লেক্স স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জাকরিয়া মাহমুদ বলেন, রাতে বিজিবি পাঁচজনকে নিয়ে আসে। এর মধ্যে মো. জামাল ও মো. ইউনুছ ছিলেন আশঙ্কাজনক। তাদের শরীরের দু’টি গুলির চিহ্ন দেখা গেছে।
গত ৪ মে থেকে জেলায় বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় তিন নারীসহ ১৬৭ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে দুই নারীসহ ৪৪ জন রোহিঙ্গা রয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *