মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭

ঠাকুরগাঁওয়ের বিউটি পার্লারে ত্বকের ব্রণ তিল আচিল পুড়ে ত্বক নষ্টের অভিযোগ

নিউজ ডেক্সঃ ঠাকুরগাঁও জেলা শহরের বড়মাঠ এলাকায় স্থাপিত লাভলী বিউটি পার্লারে ত্বকের ব্রণ, তিল ও আচিল পরিস্কারে জন্য আসলেও উল্টো ত্বক নষ্টের অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে। ত্বক নস্টের অভিযোগ তুলে ভুক্তভোগীরা এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিলে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনিক হস্তক্ষেপ চেয়েছেন স্থানীয়রা।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া অভিযুক্ত ব্যক্তি মুন্তারিন, জান্নাতুল, আরশিয়াসহ কয়েকজনের আইডিতে পোষ্ট করে লিখেছেন ব্রণ তিল রিমুভ করতে লাভলী বিউটি পার্লারে গিয়েছিলাম, তা রিমুভ করার আগে অবস না করে ডিরেক্ট মেশিন দিয়ে পুরে ক্ষত করে দেয়। পরের সাত দিনের মধ্যে সেরে উঠার জন্য একটি বুষ্টার নাইট ক্রিম এবং একটা এলোভেরা জেল ১৮শ টাকা দিয়ে নিতে হয়। কিন্তু দীর্ঘ দিন পেড়িয়ে গেলেও স্কিন ভাল না হওয়ায় সংশ্লিষ্ট পার্লারে যোগাযোগ করলে আরো কিছুদিন অপেক্ষার কথা বলা হয়। এক পর্যায়ে তিনি উল্টো রাগ দেখালে বাসায় ফিরি। তারমত অন্যরা উল্লেখ্য করেন, মুখের সমস্যায় সেখানে গিয়ে তিন হাজার টাকা দিয়েছি এলোভেরা ও সাবান দিয়েছে। দীর্ঘ দিনেও সমাধান হয়নি। নাইট ক্রিম টা খুব বাজে। এছাড়া কাজে অতিরিক্ত অর্থ নেয়ার বিষয়ে নানা অভিযোগ তুলেছেন অনেকেই।
ভুক্তভোগীরা আরো অভিযোগ করে বলেন, চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে মানুষের সাথে প্রতারনা করা হচ্ছে। ব্রণ, তিল ও আচিল পুরে ভাল করার কথা বলে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ন্যায় সংগত অভিযোগ তোলার পর প্রতিষ্ঠানের মালিক উল্টো মানহানিকর মামলা দেয়ার হুমকিও দেন। বিষয়টি খতিয়ে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের কাছে দাবি করেন তারা।
অভিযোগ প্রসঙ্গে লাভলী বিউটি পার্লারের কর্নধার লাভলী আক্তারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ব্রন রিমুভ করা, আচিল রিমুভ করা এই বিষয়ের উপর আমি ঠাকুরগাঁও থেকে প্রথম ট্রেনিং নিয়েছি ঢাকায়। তবে সরকারি কোন প্রতিষ্ঠান নয়। বাইরের দেশ থেকে ট্রেনিং নিয়ে এসে আমাদের দেশে ট্রেনিং করানো হয়। তবে কাজ করার পর ক্যান্সার হবে না বলে দাবি করেন তিনি।
এ বিষয়ে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের শীর্ষ কর্মকর্তা সিভিল সার্জন ডাঃ নুর নেওয়াজ আহমেদ জানান, এরইমধ্যে পার্লারের বিষয়টি অবগত হয়েছি। কোনভাবেই পার্লারে আসা ভোক্তাদের স্কিন ক্ষত বা পুরে ব্রণ, আচিল ও তিল রিমুভ করতে পারেন না। এসব কাজ করতে হলে অবশ্যই স্বাস্থ্য বিভাগের অনুমতি নিতে হবে। অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.