শুক্রবার, ডিসেম্বর ৩

ঠাকুরগাঁওয়ে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

নিউজ ডেস্কঃ ঠাকুরগাঁওয়ে একটি পরিবারকে মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে এক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে সদর উপজেলার দেবীপুর ইউনিয়নের কালেশ্বরগাঁও সরকারপাড়া গ্রামের বাসায় সাংবাদিকদের কাছে লিখিত অভিযোগ তুলে ধরেন পরিবারের সদস্য মিঠূ আহম্মেদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চাচা সফিজুর রহমান ও চাচাতো ভাই মানিক আলী প্রমুখ।
লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত ২২ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকালে ওই ইউনিয়নের সরকারপাড়া গ্রামে আমার চাচা মমতাজ আলী, চাচাতো ভাই গোলাম রব্বানী ও সাত্তার রহমান নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিল। এসময় ঠাকুরগাঁও থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক জাবেদ আলীসহ ১০/১২ জনের পুলিশ সদস্য কোন কারণ ছাড়াই আমার চাচা ও ভাইদের তুলে নিয়ে যায়। পরে তাদের ছেড়ে দেয়ার কথা বলে মোবাইল ফোনে ১ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা না দেয়ায় এলাকার পুলিশ সার্জেন্ট সহিদুর রহমান ও বসির উদ্দীনের পরিবারের মারামারির ঘটনায় গম চুরির নাটক সাজিয়ে আমার চাচা ও ভাইদের আসামী দেখিয়ে মিথ্যা মামলা দেয়।
শুধু তাই নয়, ৭০ বছরের বেশি সময় ধরে আমাদের ভোগদখলীয় জমির সব কাগজপত্র থাকার পরও পুলিশ সার্জেন্ট সহিদুর রহমান ও তার পরিবার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে জবর দখল করতে আসলে আমার বাবা, চাচা ও ভাইরা বাধা দেয়। তখন তাদের উপর হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দিতে গিলে পুলিশ মামলা না নিয়ে উল্টো সহিদুরের পরিবারের দেয়া মামলায় হয়রানি করতে থাকে। এতে আমরা বাড়ি ছাড়া হই।
পুলিশ সার্জেন্ট ২০১৭ সালে বাড়ির পাশে বোদা হাইওয়ে থানায় কমরত ছিলেন। সে সময় তার এহেন কার্যকলাপে গ্রামের মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠে। যা তথ্যাঅনুসন্ধান করলেই বেড়িয়ে আসবে।
২০২০ সালে সেই জমি আবার দখল করতে আসলে আমার চাচা ও ভাইরা আবারো হামলার শিকার হয়। এ ব্যাপারে থানায় মামলা দিতে গেলে পুলিশ মামলা না নেয়ায় সহিদুর রহমানকে ১নং আসামী দেখিয়ে আদালতে মামলা করা হয়। আদালত আমলে নিয়ে এফআইআর হিসেবে গ্রহণের জন্য সদর থানাকে নির্দেশ দেন। যার মামলা নং সিআর-৩১৩/২০ (জিআর-২৯৭/২০)।
উপর দিকে ২০১৭ সালে আমার পিতা ও চাচা ইসমাইল হোসেনসহ অন্যরা বাদী হয়ে আদালতে একটি সিভিল  মামলা দায়ের করেন, যা চলমান রয়েছে। কিন্তু  মামলার বাদী ইসমাইল হোসেন মারা যাওয়ার পর পুলিশ সার্জেন্ট সহিদুর রহমান ও তার পরিবার জমি দখলের জন্য বেপরোয়া হয়ে উঠে।
মামলাটি তুলে নিতে সহিদুর রহমান ও তার পরিবার মিথ্যা ও বানোয়াট ঘটনা সৃষ্টি করে থানায় একের পর এক মিথ্যা মামলা ও বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিয়ে আসছে এবং আমাদের দায়েরকৃত মামলা থেকে অব্যাহতি নিতে ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশকে দিয়ে হয়রানি করছে। আমরা আশা করছি পুলিশে উর্ধতন কর্মকর্তাগন বিষয়টি আমলে নিয়ে আমাদের রক্ষা করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *