মঙ্গলবার, মে ১১

আবারও চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিতে ম্যানসিটি

নিউজ ডেস্কঃ নিজেদের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালে উঠেছে ম্যানচেস্টার সিটি। কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে বুধবার রাতে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডকে ২-১ গোলে হারিয়েছে গার্দিওলার দল। দুই লেগ মিলিয়ে ৪-২ ব্যবধানে জিতে শেষ চারের টিকিট কেটেছে সিটিজেনরা।

বিরাট বাজেট, তারকা ফুটবলারে পূর্ণ স্কোয়াড, প্রিমিয়ার লিগে নিয়মিত দাপট। অথচ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মঞ্চে এলেই মলিন চেহারা। ম্যানচেস্টার সিটি সমর্থকদের দুঃখের অন্ত নেই। পেপ গার্দিওলা কি পারবেন সে দুঃখ ঘোচাতে? অন্তত চাপে পড়েও সেমির মঞ্চে উঠেছে সিটিজেনরা, এই তো স্বস্তি।

কিন্তু কাঠখড় একেবারে কম পোড়াতে হয়নি। বল দখলে রেখে খেলার চেষ্টায় ছিল সফরকারীরা। কিন্তু ইংলিশ জায়ান্টদের ডি-বক্সে অতর্কিত আক্রমণে ম্যাচের মাত্র ১৫ মিনিটেই লিড নেয় বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। ক্যারিয়ারের প্রথম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ গোলে কোচের মুখে হাসি ফোটান বেলিংহাম। ইতিহাসের দ্বিতীয় কনিষ্ঠতম নকআউট গোলস্কোরার হিসেবে নাম লেখান রেকর্ডের খাতায়।

সে খাতার পৃষ্ঠা ওল্টাতে অপেক্ষা করতে হয়েছে সিটিজেনদের। ডি ব্রুইনার শট ফিরেছে ক্রসবারে লেগে। সুযোগ পেয়েও স্কোর করতে পারেননি মাহরেজ-ফোডেনরা। ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকেই প্রথমার্ধ শেষ হয় গার্দিওলা বাহিনীর।

ভাগ্য বদলায় দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই। পেনাল্টি পায় ম্যান সিটি। লক্ষ্যভ্রষ্ট হননি রিয়াদ মাহরেজ। সমতায় ফেরে ইপিএল জায়ান্টরা।

দুই লেগ মিলিয়ে তখন ৩-২ গোলে পিছিয়ে ডর্টমুন্ড। কিন্তু আশা বাঁচিয়ে রেখেছিল আগের লেগে এতিহাদে পাওয়া অ্যাওয়ে গোলটা। ডাই বরুশেনদের আশা ফিকে হয় ৬৯ মিনিটে ম্যাট হামেলসের হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে ফিকে হতে থাকা আশা, পুরোপুরি ভঙ্গ হয় ৭৫ মিনিটে। ডি-বক্সের বাইরে থেকে স্কোর করেন ফিল ফোডেন। সেমির মঞ্চে পৌঁছাতে যথেষ্ট হয়েছে ২-১ গোল ব্যবধানই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *