সোমবার, এপ্রিল ১২

করোনা পরিস্থিতিতে নাটকের শুটিংয়ের নির্দেশনা প্রকাশ

নিউজ ডেস্কঃ করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ায় এক সপ্তাহ লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ অবস্থায় নাটকের শুটিং করার জন্য নির্দেশনা প্রকাশ করেছে সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো। নির্দেশনা মেনে চলা হচ্ছে কি না, তা পর্যবেক্ষণের জন্য আন্তঃসংগঠনের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে।

এফটিপিও চেয়ারম্যান মামুনুর রশীদ, টেলিপ্যাব সভাপতি ইরেশ যাকের, ডিরেক্টরস গিল্ড সভাপতি সালাহউদ্দিন লাভলু, অভিনয়শিল্পী সংঘ সভাপতি শহীদুজ্জামান সেলিম, টেলিভিশন নাট্যকার সংঘের সভাপতি মাসুম রেজার স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়েছে-

নাটক রচনা:
ক। জনসমাগম হয় এমন স্থানে শুটিং করা যাবে না।
খ। একটি দৃশ্যে দুই থেকে তিনজন অভিনয়শিল্পী ছাড়া বেশিসংখ্যক শিল্পীর সমাগম ঘটানো যাবে না।
গ। এমন ভাবে চরিত্রের বিস্তার করতে হবে যাতে অন্তত তিন ফুট দূরুত্ব বজায় রেখে অভিনীত চরিত্রগুলো মাস্টার শটে অংশ নিতে পারে।
ঘ। ঘনিষ্ঠ দৃশ্য কোনোভাবেই গল্পে রাখা যাবে না।
ঙ। পাণ্ডুলিপিহীন কোনো নাটক নির্মাণ করা যাবে না।
চ। নির্ধারিত পাণ্ডুলিপি সংশ্লিষ্ট প্রযোজক/পরিচালক দেখে নেবেন যাতে একটি দৃশ্যে ২/৩ জন শিল্পীর বেশি উপস্থিতি না থাকে।

কলাকুশলী নির্বাচন:
ক। শিল্পীদের কাস্টিং করার পূর্বে তার স্বাস্থ্য অবস্থার খোঁজ নিয়ে নিশ্চিত হবেন যে তিনি অন্তত ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন। তিনি সর্দিজ্বর বা অন্যান্য করোনা উপসর্গের মধ্যে পড়ে সেগুলো থেকে মুক্ত।
খ। নেপথ্য কুশলী নির্বাচনের ক্ষেত্রে অপরিচিত/নতুন কোনো কর্মীকে তার স্বাস্থ্যগত অবস্থা না জেনে নেওয়া যাবে না।
গ। নিয়মিতভাবে কাজ করেন এমন সকল কর্মীর বিগত অসুখ সম্পর্কে খোঁজ নেওয়া। প্রয়োজনে ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে রিপোর্ট সংগ্রহ করে কাজে নেওয়া যেতে পারে।
ঘ। সম্ভব হলে শুটিং শুরুর ১৪ দিন পূর্বে নেপথ্য কর্মীদের হোম কোয়ারেন্টিনে রেখে নির্ধারিত বিরতিসহ এক টানা শুটিং করা যেতে পারে।
ঙ। ষাটোর্ধ্ব শিল্পী, কলা-কুশলীদের অংশগ্রহণ করালে তাদের বিষয়ে অতিরিক্ত সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।
চ। শিশু/কিশোর শিল্পীদের আপাতত কোনো নাটকে অংশগ্রহণ না করানোই উচিত।

শুটিং শুরুর আগে করণীয়:
ক। সকল শিল্পী, কলাকুশলীর নাম, ঠিকানা, ফোন নম্বর, শরীরের তাপমাত্রা রেজিস্টার খাতায় লিপিবদ্ধ করতে হবে। শুটিং ইউনিট মুভ করার আগে মাইক্রোবাস জীবাণুনাশক দ্বারা স্প্রে করতে হবে।
খ। ডিজিটাল থার্মোমিটার দিয়ে একজন দক্ষ টেকনিশিয়ানের তত্ত্বাবধানে ইউনিটের কলাকুশলীর প্রত্যেককে পরীক্ষা করে গাড়িতে তুলতে হবে। সেক্ষেত্রে তিন ফুট দূরত্ব বজায় রেখে গাড়িতে বসতে হবে।
গ। শুটিং ফ্লোরে প্রবেশের সময় যাদের তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করা হয়নি তাদেরকে ফ্লোরে প্রবেশ দ্বারে একজন টেকনিশিয়ানের তত্ত্বাবধানে তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করিয়ে হাত ধুয়ে ভেতরে প্রবেশ করাতে হবে।
ঘ। শুটিং ফ্লোরে প্রবেশ দ্বারে অবশ্যই ব্লিচিং পাউডারে ভেজা পাপোস রাখতে হবে। প্রবেশ দ্বারে সম্ভব হলে ৭০ ভাগ অ্যালকোহল মিশ্রিত পানি দিয়ে স্প্রে করা যেতে পারে।
ঙ। শুটিং ফ্লোরের প্রতিটি রুম আগে থেকেই অ্যালকোহন মিশ্রিত স্প্রে দিয়ে জীবাণুনাশ করতে হবে।
চ। মেকআপ রুমসহ সকল ওয়াশরুম যথাযথভাবে জীবাণুনাশক স্প্রে করতে হবে। বিশেষ করে ওয়াশরুম প্রতি দুই ঘণ্টা অন্তর স্প্রে করতে হবে।
ছ। খাবার দেওয়ার সময় প্রডাকশন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি অবশ্যই ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধুয়ে সার্ভ করবেন। যিনি খাবার পরিবেশন করেন এবং সরবরাহের কাজে জড়িত থাকবেন তাকে সবসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। হ্যান্ডগ্লাভস ব্যবহার করতে হবে। মুখে মাস্ক সার্বক্ষণিকভাবে পরিধান করতে হবে।
জ। ইউনিটের প্রত্যেককে মাস্ক পরতে হবে। একই মাস্ক প্রতিদিন পরা যাবে না। যদি সেই মাস্ক ধৌত করার অপশন থাকে তাহলে ধুয়ে পরতে পারবেন। অন্যথায় ওয়ানটাইম মাস্ক প্রতিদিন ব্যবহার করে নির্ধারিত ডাস্টবিনে ফেলে দিতে হবে।
ঝ। শুটিংয়ে ব্যবহৃত চাদর, জানালার পর্দা প্রতিদিন ধুয়ে পরিষ্কার করতে হবে। সোফা বা অন্যান্য আসবাব স্পিরিট দিয়ে মুছে নিতে হবে। পাপসগুলো পরিষ্কার করে নিতে হবে।

আরও পড়ুন: সিনেমার শুটিং ও হল বন্ধের নির্দেশনা পায়নি সংশ্লিষ্টরা

চিত্রগ্রহণের পূর্বে করণীয়:
ক। প্রধান চরিত্রের অভিনয়শিল্পীরা (সম্ভব হলে) মেকআপ বাসা থেকে নিজ দায়িত্বে নিয়ে আসবেন। সঙ্গে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করবেন। খুব প্রয়োজন না হলে সহকারী সঙ্গে না রাখাই শ্রেয়। সহযোগী শিল্পীদের মেকআপ ইউনিট থেকে সাবধানতা মেনে দেওয়া যেতে পারে। পাশাপাশি হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্রডাকশন থেকে প্রদান করতে হবে।
খ। করোনাকালীন সময়ে খাবার নিজ দায়িত্বে করাই শ্রেয়। সে জন্য (সম্ভব হলে বা প্রয়োজন মনে করলে) প্রত্যেক শিল্পী তাদের খাবার এবং ক্রোকারিজ সামগ্রী সঙ্গে বহন করবেন। ইউনিটের অন্যান্যদের জন্য প্রযোজক সুষম খাবারের ব্যবস্থা করবেন। ওয়ানটাইম ক্রোকারিজ সামগ্রী ব্যবহার করাই ভালো।
গ। রূপসজ্জা শিল্পী অবশ্যই কাজ শুরুর পূর্বে পোশাক পরিবর্তন করবেন এবং মাস্ক, ফেস শিল্ড ব্যবহার করবেন।

শুটিং স্থানে করণীয়:
ক। নির্ধারিত শুটিং জোনে কেবল মাত্র ২/৩ জন শিল্পী থাকবেন। একজন ক্যামেরাম্যান, একজন পরিচালক, একজন লাইটম্যান একটি দৃশ্যে উপস্থিত থাকবেন। পরের দৃশ্যে আবার ক্রু পরিবর্তন করে কাজ করতে হবে। নিরাপদ দূরত্বে অবস্থান নিয়ে দৃশ্যধারণের কাজ করবেন।
খ। প্রত্যেকটা দৃশ্য শেষে পোশাক পরিবর্তন করার প্রয়োজন হলে সঙ্গে সঙ্গে হাত ধুতে হবে। হাঁচি-কাশির শিষ্টাচার মেনে চলতে হবে।
গ। কর্মক্ষেত্রে কেউ হঠাৎ অসুস্থ বোধ করলে তাকে সরাসরি ডাক্তারের কাছে নিতে হবে।

শুটিং শেষে করণীয়:
ক। সকলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন আছেন কিনা, স্বাস্থ্যবিধি মানা হয়েছে কিনা প্রযোজকের পক্ষে একজন উপযুক্ত ব্যক্তি অবলোকন করে নিশ্চিত করবেন।
খ। ইউনিটের সবাইকে গাড়ি দিয়ে গন্তব্যে নামিয়ে দিতে হবে। পরদিন যথাযথ নিয়ম মেনে আবার কাজে যোগ দিতে হবে।
গ। সরকারের বেধে দেওয়া সময়সীমার সঙ্গে সমন্বয় করে শুটিং করতে হবে। আন্তঃসংগঠনের সিদ্ধান্ত শুটিংয়ের সময়কাল সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত।
ঘ। পরিচালক ও ভিডিও সম্পাদক স্বাস্থ্যবিধির সব নির্দেশনা মেনে সম্পাদনার কাজ সমন্বয় করে তা সম্পন্ন করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *