ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ অব্যাহত, নিহত বেড়ে ৯৯

নিউজ ডেস্ক: টানা পঞ্চম দিনের মতো সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল ইরাক। শনিবারও আন্দোলনকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তাবাহিনীর ব্যাপক সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় বাগদাদ, নাজাফসহ দেশটির বেশ কয়েকটি বড় শহর। এদিনও নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে প্রাণ হারান ৫ জন।
এনিয়ে সহিংস এই বিক্ষোভে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৯৯-তে দাঁড়ালো। এরমধ্যেই আলোচনায় বসতে আন্দোলনকারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইরাকি পার্লামেন্টে স্পিকার। এদিকে সহিংসতা বন্ধে উভয় পক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ।
আগের দিনের ধারাবাহিকতায় শনিবারও দুর্নীতি, বেকারত্ব, দুর্বল সরকার ব্যবস্থাসহ নানা কারণে রাস্তায় নামেন সাধারণ ইরাকিরা। তারা ক্ষমতাসীন সরকারের বিরুদ্ধে নানা স্লোগান দেওয়ার পাশাপাশি, অবিলম্বে সমস্যা সমাধানের দাবী জানান। কঠোর সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী আদেল আব্দুল মাহদির।
আন্দোলনকারীরা বলেন, ন্যায্য দাবি আদায়ের জন্যই এই আন্দোলন। যতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের দাবি আদায় হবে না, ততক্ষণ পর্যন্ত এ বিক্ষোভ চলবে।
অপর একজন বলেন, আমি স্নাতকোত্তর শেষ করেছি। কিন্তু সরকার আমাকে ঝাড়ুদারের একটি চাকরিও দেয়নি। এ দেশের অধিকাংশ যুবকেরই একই অবস্থা।
আন্দোলনকারীদের বিক্ষোভের এক পর্যায়ে তাদের উপর চড়াও হয় নিরাপত্তা বাহিনী। কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়া হয়। প্রতিবাদকারীদের উপর নির্বিচারে গুলি চালায় পুলিশ। এতে হতাহত হয় বেশ কয়েকজন। এসময় পুলিশের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যাপক সংঘর্ষ হয়।
প্রতিবাদকারীরা বলছেন, ইরাক এখন এমন একজন প্রধানমন্ত্রীর নিয়ন্ত্রণে, যিনি কি-না বিনা কারণে সাধারণ মানুষের ওপর গুলি চালাতে নিরাপত্তা বাহিনীকে নির্দেশ দেন।
নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে আন্দোলনকারীদের ব্যাপক সংঘর্ষের মধ্যেই ইরাকি পার্লামেন্টের স্পিকার, আলোচনায় বসতে বিক্ষোভকারীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
ইরাকি পার্লামেন্টের স্পিকার মোহাম্মদ আল হালবৌসি বলেন, আসলেই, সাধারণ মানুষদের দৈনন্দিন চাহিদা পূরণে আমরা ব্যর্থ হয়েছে। এবং এটা উপলব্ধি করতেও আমারও অনেক দেরি করে ফেলেছি। দুর্নীতি আমাদের সমাজের একটি ব্যধিতে পরিণত হয়েছে।
এদিকে ইরাকে সরকারবিরোধী আন্দোলনে প্রাণহানির ঘটনায় গভীর উদ্বেগ জানিয়েছে জাতিসংঘ। দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘের প্রতিনিধি এক বিবৃতিতে প্রাণহানি বন্ধ করে অবিলম্বে আলোচনায় বসতে উভয় পক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন আগ্রাসনে সাদ্দাম হোসেনের পতনের পর, দেশটির মানুষ গণতন্ত্রের সুফল পাবে বলে ধারণা করা হয়েছিলো। কিন্তু সাদ্দাম পরবর্তী সময়ে সাধারণ ইরাকিরা পেয়েছে দুর্নীতি আর নানা অনিয়মে ডুবে থাকা, ক্ষত-বিক্ষত এক ইরাক। যারই বহি:প্রকাশ গত কয়েকদিনের সহিংস বিক্ষোভ।

  • Related Posts

    সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকা গেল কোথায়?

    সুইস ব্যাংকে জমা রাখা বাংলাদেশিদের অর্থ উল্লেখযোগ্য হারে কমে যাওয়ায় নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। সম্প্রতি সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মাত্র এক বছরের ব্যবধানে ৯৪ শতাংশ অর্থ…

    চাকুরি বদলির জন্য এক রাতের জন্য স্ত্রীকে চাইলেন কর্মকর্তা অত:পর

    নিউজ ডেক্সঃ বদলি চাইলে এক রাতের জন্য বউকে পাঠিয়ে দাও’ স্ত্রীর উদ্দেশে এমন মন্তব্য মেনে নিতে না পেরে নিজের গায়ে ডিজেল ঢেলে আত্মহত্যা করেছেন বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মচারি। ঘটনাটি ঘটে…

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    You Missed

    ভারতে চিকিৎসা সেবায় সুযোগ সুবিধা প্রদানে যৌথ সভা 

    • By editor
    • February 10, 2024
    • 63 views
    ভারতে চিকিৎসা সেবায় সুযোগ সুবিধা প্রদানে যৌথ সভা 

    অবৈধভাবে চাল মজুদ রাখার অভিযােগে আবারো মিল মালিককে জরিমানা

    • By editor
    • February 9, 2024
    • 64 views
    অবৈধভাবে চাল মজুদ রাখার অভিযােগে আবারো মিল মালিককে জরিমানা

    উন্নত মানের কম্বল পেয়ে খুশি দরিদ্র মানুষেরা

    • By editor
    • January 18, 2024
    • 70 views
    উন্নত মানের কম্বল পেয়ে খুশি দরিদ্র মানুষেরা

    এক হাজার দরিদ্র মানুষকে শীতবস্ত্র প্রদান করলেন বিজিএমিইএ’র সভাপতি

    • By editor
    • January 15, 2024
    • 67 views
    এক হাজার দরিদ্র মানুষকে শীতবস্ত্র প্রদান করলেন বিজিএমিইএ’র সভাপতি

    প্রশাসনে বদলীর নির্দেশনায় ঠাকুরগাঁওয়ের চার ওসি, দুই ইউএনও

    • By editor
    • December 3, 2023
    • 65 views
    প্রশাসনে বদলীর নির্দেশনায় ঠাকুরগাঁওয়ের চার ওসি, দুই ইউএনও

    জনপ্রিয় নেতা আলী আসলাম জুয়েলকে নৌকার মাঝি হিসেবে পেতে মড়িয়া ভোটাররা

    • By editor
    • November 19, 2023
    • 63 views
    জনপ্রিয় নেতা আলী আসলাম জুয়েলকে নৌকার মাঝি হিসেবে পেতে মড়িয়া ভোটাররা